নাম্বার ৯,  প্রায় সকল ফরোয়ার্ডদের পছন্দ, গর্ব ও আস্থার প্রতীক। অথচ ইংলিশ ক্লাব চেলসিতে এই নয় নাম্বারটিকে নাকি ভাবা হয় অভিশপ্ত। নিজের জার্সি নাম্বার হিসেবে নাম্বার নাইন পছন্দ করাতো দূরের কথা, এই জার্সি ছুঁয়েও দেখতে চাই না কেউ।

কোচ টমাস টুখেল জানান, তার দলে এই জার্সিকে ঘিরে আছে কুসংস্কার। সেই ভাবনায় নাকি সায়ও আছে স্বয়ং চেলসি কোচের।

এভারটনের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে শনিবার শুরু হচ্ছে ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগে চেলসির নতুন মৌসুম। অতচ ক্লাবের ৯ নম্বর জার্সি এখনও ফাঁকা। ধারণা করা হচ্ছিল, নতুন কোনো ফরোয়ার্ডকে আনা হবে বলেই এই জার্সি এখনও কাউকে দেওয়া হয়নি। অথচ চেলসি কোচ জানালেন ভিন্ন কথা। নাম্বার নাইনকে চেলসিতে ভাবা হয় অভিশপ্ত হিসেবে। তাই কোনো খেলোয়াড় এই জার্সি নিতে রাজি হয় না বলে জানান তিনি।

“ছেলেরা আমাকে বলে এটা অভিশপ্ত…এমন নয় যে ট্যাকটিকাল কোনো কারণে আমরা এই জার্সি ফাঁকা রেখেছি। বিস্ময়করভাবে, কেউ এটা ছুঁয়ে দেখতে চায় না। এখানে যারাই আমার চেয়ে বেশি সময় ধরে আছে, তারা সবাই বলে, ‘আহ, জানেন না, অমুক ৯ নম্বর জার্সিকে খেলেছে এবং গোল করতে পারেনি। তমুক ৯ নম্বর পরে খেলেছে, স্কোর করতে পারেনি।’ সবাই এসব কথা বলে।”

“এই মুহূর্তে তাই কেউই ৯ নম্বর জার্সি নিতে চায় না। আমিও কুসংস্কারে বিশ্বাস করি, তাই ভালোভাবেই বুঝতে পারি, কেন ছেলেরা এটা না নিয়ে অন্য জার্সি নিতে চায়।”

চেলসির হয়ে সবর্শেষ ৯ নাম্বার জার্সিতে খেলেছিলেন লুকাকু। তবে প্রত্যাশা মেটাতে ব্যর্থ হোন তিনি। তবে লুকাকুর উল্টো চিত্র দেখা যায় ইন্টার মিলানের হয়ে খেলা লুকাকুর পারফরম্যান্সে।

শুধু লুকাকু নয়, এই জার্সিতে আগে খেলা হিগুয়েইন, তোরেস, মোরাতারাও পারেনি নিজের জাত চেনাতে।

তবে জার্সির কাহিনী খোলাসা করার পাশাপাশি আরেকজন ফুটবলারকে দলে আনার সম্ভাবনাও জানান টুখেল।

“হয়তো আমরা আরেকজন ফুটবলারকে আনতে পারি, হয়তো নয়… আমাদের সুযোগ আছে আনার, তবে আমরা এটাও জানি সামনে কত খেলা আসছে। তো দেখা যাক, এখনও আরেকজন ফুটবলারকে দলে আনতে পারি কিনা…।”


সর্বশেষ খবর পেতে আমাদের Google News ফিডটি ফলো করুন