২০১৭-১৮ মৌসুম পর প্রথমবারের মতো চ্যাম্পিয়ন্স লিগ খেলা স্কটিশ ক্লাব সেল্টিকের বিরুদ্ধে আজ গোলের জন্য বর্তমান চ্যাম্পিয়নদের অপেক্ষা করতে হয়েছে দীর্ঘসময় পর্যন্ত। দ্বিতীয়ার্ধের ৫৬তম মিনিট ভিনিসিয়াস জুনিয়র রিয়ালের হয়ে গোলের খাতা খোলার পর লুকা মদ্রিচ ও ইডেন হ্যাজার্ডও নাম লিখান গোলের খাতায়। এতে করে বর্তমান চ্যাম্পিয়নরা সেল্টিকের বিপক্ষে তাদের মাঠে জিতে ৩-০ গোলের ব্যবধানে।

লা লিগায় খেলা সবর্শেষ ম্যাচ থেকে দুটি বদল এনে সেল্টিকের বিরুদ্ধে আজ রিয়ালের প্রথম একাদশ সাজান। তবে ম্যাচের ৩০ তম মিনিটে ইনজুরি কারণে মাঠ ছাড়তে হয় ফরাসি তারকা বেনজেমাকে। তার বদলি হিসেবে মাঠে নামেন ইডেন হ্যাজার্ড।

ম্যাচের ৪৩তম মিনিটে গোল করার দারুণ সুযোগ এসেছিলো হ্যাজার্ডের সামনে। তবে সে যাত্রায় দলকে এগিয়ে নিতে ব্যর্থ হোন তিনি। এর আগে ২১তম মিনিটে সবচেয়ে সহজ সুযোগটি নষ্ট হয় সেল্টিকের। স্প্যানিশ মিডফিল্ডার ম্যাকগ্রেগরের নেওয়া শট গোলপোস্টে লেগে ফিরে আসলে গোল বঞ্চিত হয় স্বাগতিকরা।

বিরতি থেকে ফিরে আবারও গোলের সহজ হাতছাড়া করে মিনিটখানেক আগে বদলি নামা জাপানিজ স্ট্রাইকার মায়েদা।

 

বড় দলের বিপক্ষে সুযোগ পেয়েও কাজে লাগাতে না পারার ভুলের মাশুল এরপরই দিতে হলো সেল্টিককে। ম্যাচের ৫৬তম মিনিটে ফেদে ভালভার্দের লম্বা পাস থেকে ডি বক্সের ভেতর বল পেয়ে যান ছুটন্ত অবস্থায় থাকা ভিনিসিয়াস। দারুণ ফিনিশিংয়ে বল জালে জড়িয়ে এই ব্রাজিলিয়ান তারকা স্বরণ করিয়ে দেন লিভারপুলের বিপক্ষে ফাইনালের সেই গোলটির কথা।

গোল করার পর ভিনিসিয়াস জুনিয়র

ম্যাচের ৬৬তম মদ্রিচের গোলে ব্যবধান দ্বিগুণ করে রিয়াল মাদ্রিদ। মাঝ মাঠ থেকে হ্যাজার্ড দূর্দান্তভাবে বল পায়ে ডি বক্সে ডুকে পড়েন। সেখান থেকে পাস দেন মদ্রিচকে। ডি-বক্সের মধ্যে পাওয়া বলটি মদ্রিচ তার পায়ের জাদুতে সকলকে চমকে দিয়ে জালে জড়ান।

মদ্রিচের গোলে মুগ্ধ সবাই।

আগের গোলে সহয়তা করা হ্যার্জাডও গোল পেয়ে যান ম্যাচের ৭৭তম মিনিটে। ক্রুসের ক্রস ডি-বক্সে পেয়ে যান ডিফেন্ডার কার্ভাহাল। সেখান থেকে তার পাস খুঁজে নেয় ডি-বক্সে থাকা আরেক মাদ্রিদ ফুটবলার হ্যাজার্ডকে। এই বেলজিয়ামের তারকার অবশ্যই বেশি কিছু করতে হয়নি। একদম সহজ একটি গোল করেন অনেকটা খালি জায়গা পেয়ে।

এতে করে লা লিগা ও চ্যাম্পিয়ন্স লিগ মিলিয়ে নতুন মৌসুমে এখনো অপরাজিত থাকলো কোচ আনচেলত্তি।। দল।


সর্বশেষ খবর পেতে আমাদের Google News ফিডটি ফলো করুন