একসঙ্গে সাত-আট নারীর সাথে শারীরিক সম্পর্ক রাখার অভিযোগে আদালতে সময় কাটাতে হচ্ছে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের সাবেক খেলোয়াড় রায়ান গিগসকে। ক্লাবটির চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ম্যানচেস্টার সিটির ডিফেন্ডার বেঞ্জামিন মেন্ডিও হাঁটলেন এবার একই পথে। সাত নারীকে ধর্ষণের অভিযোগে ক্লাব থেকে নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়েছিল গতবছরই। এবার আরো বড়সড় শাস্তির মুখে পড়তে যাচ্ছেন এই সিটি ডিফেন্ডার।

মেন্ডির বিরুদ্ধে করা এই অভিযোগটি নিয়ে বর্তমানে তদন্ত চলছে। অপরাধ প্রমান হলে শাস্তি হিসেবে ৫ থেকে ২০ বছরের কারাদণ্ড হতে পারে মেন্ডির। যাবজ্জীবন কারাদণ্ডও হতে পারে তার। শেষ হয়ে যেতে পারে ফুটবল ক্যারিয়ার।

দ্য আতলেটিকের রিপোর্ট বলছে, মেন্ডির ম্যানচেস্টার সিটির অতীত এবং বর্তমান মিলিয়ে সর্বোচ্চ পাঁচজন পর্যন্ত সতীর্থদের সাক্ষী হিসাবে ডাকা হতে পারে। জ্যাক গ্রিলিশ, রিয়াদ মাহরেজ, কাইল ওয়াকার, রাহিম স্টার্লিং এবং জন স্টোনস সকলেই বিচারে উপস্থিত থাকতে পারেন।

২০১৭ সাল থেকে সিটিতে খেলছেন মেন্ডি। তার বিরুদ্ধে সাত জন নারী ধর্ষণ এবং যৌন হেনস্থার অভিযোগ দায়ের করেছেন পুলিশের কাছে। ৮ বার ধর্ষণ, ১ বার যৌন হেনস্থা এবং ১ বার ধর্ষণের চেষ্টার অভিযোগ রয়েছে ২৮ বছরের ফরাসি ফুটবলারের বিরুদ্ধে।

এর মধ্যে নয়টি অভিযোগের ভিত্তিতে আদালতে আগেই শুনানি হয়েছে। কোনও ক্ষেত্রেই এখনও মেন্ডিকে দোষী সাব্যস্ত করেনি আদালত।

এ বার দশম অভিযোগের শুনানি শুরু হয়েছে ইংল্যান্ডের চেস্টার ক্রাউন আদালতে। আগের সব ক্ষেত্রেই অবশ্য অভিযোগ অস্বীকার করে আসছেন ফ্রান্সের হয়ে ১০টি ম্যাচ মাঠে নামা মেন্ডি।


সর্বশেষ খবর পেতে আমাদের Google News ফিডটি ফলো করুন