সময়ের সাথ সাথে নাকি বদলে যায় আমাদের চারপাশের অনেক কিছুই ৷ ক্রিকেটারদের ক্ষেত্রেও তাই, কন্ডিশন কিংবা ফরমেট পরিবর্তন হলে অনেক সময় পরিবর্তন আসে পারফরম্যান্সে। বাংলাদেশে দলের দিকেই দেখুন, ওয়ানডেতে বাঘের মতো হুঙ্কার দেওয়া টাইগাররা টি-টোয়েন্টি ও টেস্টে বনে যায় বিড়াল। শুধু দল না, প্রতিপক্ষ, কন্ডিশন কিংবা ফরমেট বদলালে পরবর্তন আসে ক্রিকেটারদের ব্যক্তিগত পারফরম্যান্সে। এই যেমন জিম্বাবুয়ের সিকান্দার রাজা, বাংলাদেশের বিপক্ষে কি দারুণ খেললো অথচ  ভারতের বিপক্ষে দাঁড়াতেই পারলো না। সময়, পরিস্থিতি কিংবা প্রতিপক্ষ এসব পরিবর্তনের হাওয়া প্রায় সব ক্রিকেটারের গায়ে লাগলেও তা থেকে এখনও মুক্ত পাকিস্তান অধিনায়ক বাবর আজম।

পাকিস্তানের নেদারল্যান্ডসের সাথে চলতি ওয়ানডে সিরিজ জেতার পেছনের অন্যতম কারিগর বাবর আজম প্রথম ম্যাচে ব্যাট হাতে করেছিলেন ৭৪ রান। আজ দ্বিতীয় ওয়ানডেতে করলেন ৫৭। এ নিয়ে শেষ দশ ওয়ানডেতে বাবার পঞ্চাশোর্ধ রানের ইনিংস খেললো আটবার। সেঞ্চুরি চারটি। সর্বোচ্চ ১৫৮ রান।

ওয়ানডেতে শেষ দশ ইনিংসে বাবরের ব্যাট থেকে এসেছে প্রতি ৭৬.৫ গড়ে মোট ৭৬৫ রান।

টেস্টে শেষ দশ ম্যাচে বাবরের ব্যাট উজ্জ্বল ওয়ানডের চাইতেও। ৫০ রানের কমে আউট হয়েছেন মাত্র তিন ম্যাচে। একটি ডাবল সেঞ্চুরির সাথে আছে আরো তিনখানা সেঞ্চুরি। শেষ দশ ম্যাচে ৯৫.৫ গড়ে মোট ৯৫৫ রান করেছে এই পাকিস্তান অধিনায়ক। সর্বোচ্চ ২৩২ রান।

টি-টোয়েন্টিতে শেষ দশ ইনিংসে চার ফিফটিতে মোট রান ৩৫৪। গড় ৩৫.৪ রান।

আইসিসি ওয়ানডে বিশ্বকাপ সুপার লিগে বাবর আজম প্রথম ব্যাটসম্যান হিসেবে স্পর্শ করেন হাজার রান করার মাইলফলক। সুপার লিগে এখন পর্যন্ত ১৭ ম্যাচ খেলে ৮০.৯৩ গড়ে মোট ১২১৫ রান করেন বাবর।আইসিসি টেস্ট চ্যাম্পিয়নশীপে ৯ ম্যাচের ১৬ ইনিংসে ৬৩.৫৩ গড়ে মোট ৯৫৩ রান সংগ্রহ করেছেন এই পাকিস্তানী অধিনায়ক। যা অধিনায়ক হিসেবে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ।

নিজের ব্যক্তিগত পারফরম্যান্সে বাবর আজম বর্তমানে যে ফর্মে আছে তার শেষটা কোথায় হবে তা বলা মুশকিল। পাকিস্তানি এই অধিনায়াকের বর্তমান পারফরম্যান্সে আপনি আপাতত একটি কথাই বলতে পারেন ❝সময় এখন সম্রাট বাবরের ❞


সর্বশেষ খবর পেতে আমাদের Google News ফিডটি ফলো করুন