ম্যাচের মাত্র পঞ্চম মিনিটেই গোল করে পিএসজিকে এগিয়ে নেন মেসি। নেইমারের পাস থেকে বাঁও পায়ে বল জালে জড়িয়ে ইঙ্গিত দিয়ে রাখেন প্রতিপক্ষকে গোলবন্যায় ভাসিয়ে দেওয়ার। তবে ঐ এক গোলেই সন্তুষ্ট থাকতে হয়েছে মেসি, নেইমার, এমবাপ্পেদের নিয়ে গড়া পিএসজির আক্রমনভাগকে। প্রতিপক্ষের গোলরক্ষক আন্তনি লোপেসের নৈপুণ্যে মাত্র এক গোলের বেশি দিতে পারেনি মেসিরা।

আজ (রোববার) রাতে লিগ ওয়ানের ম্যাচে পার্ক অলিম্পিক লিওঁয়ের মাঠে স্বাগতিকদের বিপক্ষে ১-০গোলে জিতেছে পিসএজি। এই জয়ে ২২ পয়েন্ট নিয়ে দলটি আবারো দখলে নিয়েছে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষস্থানটি।

আজকের ম্যাচটি নেইমারের জন্য ছিলো বিশেষ এক মাইলফলক স্পর্শ করার ম্যাচ। পিএসজির জার্সিতে আজ লিগে নিজের ১০০তম ম্যাচ খেলতে নামেন এই ব্রাজিলিয়ান তারকা। শততম ম্যাচে নিজে গোল না পেলেও বন্ধু মেসিকে দিয়ে গোল করাতে ভুলেননি নেইমার।

অবশ্য নেইমার, এমবাপ্পেদের সামনে অনেকগুলো সুযোগ ছিলো গোলের খাতা খোলার, কিন্তু প্রতিপক্ষের পর্তুগিজ গোলরক্ষক ও রক্ষণভাগের খেলোয়াড়দের দূর্দান্ত পারফরম্যান্সে ব্যবধান বড় করতে পারেনি পিএসজি।

পুরো ম্যাচে ৬৬ শতাংশ সময় বল নিজেদের পায়ে রেখেছিল পিএসজি। প্রতিপক্ষের গোলপোস্টে শট নেয় মোট ১৫ টি। যেখানে লক্ষ্যেই ছিলো আটটি শট। তবে বল জালে জড়িয়েছে মাত্র একবার।

অন্যদিকে ৩৪ শতাংশ বল নিজেদের পায়ে রেখে মোট নেওয়া ডজনখানেক শটের মধ্যে মাত্র তিনটি লক্ষ্যে রাখে অলিম্পিক লিওঁয়ের ফুটবলাররা।

লিগ ওয়ানে মেসি ও নেইমারের অ্যাসিস্টের সংখ্যা সমান সাতটি। তবে মোট আটটি গোল করেন নেইমার বিপরীতে মেসির গোল চারটি।


সর্বশেষ খবর পেতে আমাদের Google News ফিডটি ফলো করুন