সাফ নারী চ্যাম্পিয়নশীপের এবারের আসরে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে বাংলাদেশ। পূরণ হয়েছে ১৬ কোটি মানুষের স্বপ্ন। আর এই স্বপ্নপূরণে লাল সবুজের প্রতিনিধি দলটিকে সামনে থেকে যিনি নেতৃত্ব দিয়েছেন তিনি সাবিনা খাতুন। পুরো টুর্ণামেন্টে দূর্দান্ত পারফরম্যান্সে দলকে জিতিয়েছেন প্রথমবারের মতো দক্ষিণ এশিয়ার শ্রেষ্ঠত্বের মুকুট। নিজে জিতেছেন সর্বোচ্চ গোলদাতা ও সেরা খেলোয়াড়ের খেতাব। ফাইনালে গোল না পেলেও আগের চার ম্যাচে করেছন দুটি হ্যাট্রিকসহ মোট ৮ গোল। দলের সবার কাছে সাবিনা আপু নামে পরিচিত এই বাংলাদেশ অধিনায়ক যেভাবে টুর্ণামেন্ট জুড়ে গোল করে কিংবা সর্তীথকে দিয়ে করিয়ে নিজেকে আলোচনায় রেখেছেন তাতে বলায় যায় এবারের সাফের আসরটি যেন সাবিনাময়।

২০১৬ সালে সাফ নারী চ্যাম্পিয়নশীপের ফাইনালে হেরে স্বপ্নভঙ্গ হওয়া বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক ছিলেন সাবিনা খাতুন, তবে সেবার শিরোপাটি কাছ থেকে দেখেই দূরে রেখে দেশে ফিরতে হয় সাবিনার। মাঝে কেটেছে ছয়টি বছর, তখনকার বাংলাদেশ দল আর বর্তমান দলে এসেছে আমুল পরিবর্তন। পরিবর্তন আসেনি শুধু সাবিনার ধারাবাহিক পারফরম্যান্সে। বরং দিনদিন যেন নিজেকে নিয়ে যাচ্ছেন অনন্য উচ্চতায়।

নেপালের উদ্দেশ্যে দেশ ছাড়ার আগে বলেছিলেন শিরোপা নিয়ে ফিরতে চান, তবে বাংলাদেশ অধিনায়ক মনে মনে হয়তো পণ করে রেখেছিলেন শুধু শিরোপা নয়, সেরা গোলদাতা, সেরা খেলোয়াড় সব পুরস্কারই নিয়ে ফিরবেন দেশে।

পুরো টুর্নামেন্টে পাঁচ ম্যাচের সবকটিতে খেলা সাবিনা গোল করেছেন মোট আটটি। হ্যাট্রিক করেন দুই ম্যাচে। এতেই নিশ্চিত হয় টুর্নামেন্টের সর্বোচ্চ গোলদাতার পুরস্কার উঠতে যাচ্ছে সাবিনার হাতে। তবে শেষ পর্যন্ত সর্বোচ্চ গোলদাতার পুরস্কারের পাশাপাশি সাবিনা মনোনীত হন এবারের আসরের সেরা খেলোয়াড় হিসেবেও।

পুরো টুর্নামেন্টে মাত্র একটি গোল হজম করা বাংলাদেশ গোলকিপার রূপনা চাকমা পেয়েছেন টুর্নামেন্ট সেরা গোলকিপারের খেতাব।


সর্বশেষ খবর পেতে আমাদের Google News ফিডটি ফলো করুন