❝ছাদখোলা চ্যাম্পিয়ন বাসে ট্রফি নিয়ে না দাঁড়ালেও চলবে, সমাজের টিপ্পনী কে একপাশে রেখে যে মানুষগুলো আমাদের সবুজ ঘাস ছোঁয়াতে সাহায্য করেছে, তাদের জন্য এটি জিততে চাই। ❞

নেপালের বিপক্ষে সাফের ফাইনালে মাঠে নামার আগে বাংলাদেশ নারী দলের ফুটবলার সানজিদা আক্তার নিজের ফেসবুক পেইজে এমন এক আবেগঘন পোষ্ট করেন। যা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে মুহূর্তেই ছড়িয়ে পড়ে। নেপালের আকাশে সূর্য পশ্চিম দিকে হেলে পড়তে শুরু করে তখন স্টেডিয়াম ভর্তি নেপালি সমর্থক ও ফুটবলারদের স্বপ্নকে পশ্চিম দিকে অস্তায়মান সূর্যের ন্যায় বির্সজন দিয়ে বাংলার ১৮ কোটি ফুটবলপ্রেমি মানুষদের আনন্দে ভাসান সাবিনা-সানজিদারা। ভারতের পর একমাত্র দল হিসেবে জিতে নেয় দক্ষিণ এশিয়ার শ্রেষ্ঠত্বের মুকুট।

বাংলাদেশ দল যখন নেপালে শিরোপা উল্লাসে মেতেছে তখনই দেশে বিভিন্ন সংবাদমাধ্যম থেকে শুরু করে ফুটবল প্রেমীরা ঝড় তুলে একটি ছাদখোলা বাসে মেয়েদের শিরোপা উদযাপনের ব্যবস্থা করে দিতে। সেই দাবি পৌঁছায় যুব ও ক্রিড়া প্রতিমন্ত্রীর কানে। দ্রুত সময়ে বিআরটিসির একটি দোতালার বাসের ছাদ খুলে তৈরি করা হয় সানজিদাদের স্বপ্নের সেই ছাদখোলা বাসে।

আজ সাফ জয়ী নারীরা দেশে ফিরলে বিমানবন্দর থেকে ছাদখোলা বাসে করে প্রাণের শহর ঢাকার রাজপথে শিরোপা উদযাপন করতে থাকে সাবিনা,সানজিদা,কৃষ্ণা রাণীরা।

ইউরোপীয়ান ফুটবলে চ্যাম্পিয়ন দলগুলো যেভাবে শিরোপা জিতে উল্লাস করে ইংল্যান্ড, স্পেনের রাস্তায় সেই চিরচেনা দৃশ্য আজ ফুটে উঠেছে বাংলার ঢাকায়।

একটি ফেসবুক পোষ্টকে কেন্দ্র করে দেশের ফুটবল পেয়েছে নতুন জীবন। দেশের ফুটবলকে ঘিরে এই উদ্দীপনা, আনন্দ, উল্লাস চলতে থাকুক, দেশের ঝিমিয়ে পড়া ফুটবল আবার জেগে উঠুক এমনটিই কামনা ফুটবলপ্রেমিদের।


সর্বশেষ খবর পেতে আমাদের Google News ফিডটি ফলো করুন