কেন পাকিস্তান দলকে আনপ্রেডিক্টেবল বলা হয় আজও তার একটি জলজ্যান্ত উদাহরণ দিলো বাবর আজমের দল। করাচিতে সিরিজের দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টিতে ইংলিশদের দেওয়া পাহাড়সম লক্ষ্য টপকে ১০ উইকেটের বিশাল জয় তুলে নেয় পাকিস্তান।

আগে ব্যাট করতে নেমে দুই ইংলিশ ওপেনার ৫ ওভারে স্কোরকার্ডে যোগ করেন ৪২ রান। ষষ্ঠ ওভারে বল করতে এসে দাহানি পরপর দুই বলে ফেরান আগের ম্যাচে ফিফটি করা অ্যালেক্স হেলস ও ডেভিড মালানকে। তবে তৃতীয় উইকেটের জুটিতে ৩৭ বলে ৫৩ রান যোগ করে সল্ট ও ডাকেট। ব্যক্তিগত ৩০ রান করে সল্ট ফেরার পর দ্রুত ফিরেন ডাকেটও।বাঁহাতি নেওয়াজের বলে বোল্ড হন তিনি। এরপর ক্রিজে আসেন অধিনায়ক মইন আলী। আগের ম্যাচে দলকে জিতিয়ে মাঠ ছাড়া ব্রুকসকে সঙ্গে করে গড়েন ২৭ বলে ৫৯ রানের জুটি। মাত্র ১৯ বল থেকে ৩১ রান করা ব্রুকস বিদায় নিলে পরের ব্যাটার কারানকে নিয়ে আরো ঝড় ইনিংস খেলেন মইন। নিজের মাত্র ২৩ বলে ৫৫ রানের অপরাজিত ইনিংসের পাশাপাশি কারানের সাথে গড়েন ১৩ বলে ৩৯ রানের জুটি। সিরিজে সমতা আনার জন্য পাকিস্তানকে ছুঁড়ে দেয় ২০০ রানের পাহাড়সম লক্ষ্য।

করাচিতে স্টেডিয়ামভর্তি দর্শকদের হতাশ করেননি বাবর-রিজওয়ান।

বড় রানের লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে এশিয়া কাপে বারবার ব্যর্থ হওয়া বাবর-রিজওয়ান জুটি আজ গড়ে রেকর্ড। ইংলিশ বোলারদের তুলোধুনো করে ৩ বল বাকি রেখেই ম্যাচ জিতে নেয় পাকিস্তান। দুই ওপেনার গড়েন ওপেনিংয়ে রেকর্ড ২০৩ রানের জুটি। যা টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে ওপেনিং জুটিতে তৃতীয় সর্বোচ্চ। এবং পাকিস্তানের ইতিহাসে প্রথম দুইশত রানের জুটি।

এশিয়া কাপে ব্যর্থ হওয়া বাবর আজম মাত্র ৬২ বলে তুলে নেন টি-টোয়েন্টিতে নিজের দ্বিতীয় সেঞ্চুরি। ৬৬ বলে ১১ চার ৫ ছয়ে ১১০ রান করে থাকেন অপরাজিত। এর আগে পাকিস্তানের ব্যাটিং সম্রাট বাবর আজম গড়েন আরেকটি মাইলফলক। টি-টোয়েন্টিতে ক্রিস গেইলের পর দ্রুত ৮,০০০ রানের ঘর স্পর্শ করেন তিনি।

অন্যদিকে ৫১ বলে ৫ চার ৪ ছয়ে ৮৮ রান করে অপরাজিত থাকেন আরেক ব্যাটার মোহাম্মদ  রিজওয়ান। আগের ম্যাচে ইংলিশরা জিতলেও আজকের ম্যাচে জিতে সিরিজে ১-১ সমতা আনলো পাকিস্তান।


সর্বশেষ খবর পেতে আমাদের Google News ফিডটি ফলো করুন