নতুন মৌসুমে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ছাড়তে চান রোনালদো এমন সংবাদে সয়লাব সংবাদমাধ্যমগুলো। কোনো ক্লাবই নাকি এই পাঁচবারের বর্ষসেরা জয়ী তারকাকে নিতে চায় না দলে। দিনকয়েক আগে এসব সংবাদের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করে রোনালদো সাংবাদিকদের নিয়েছিলেন একহাতে।

প্রথম দুই ম্যাচে বাজে হারের পর আজ লিভারপুলের বিপক্ষে ইউনাইটেডর শুরু একাদশেও ছিলেন না এই মহাতারকা, সবমিলিয়ে স্বাভাবিকভাবেই মন খারাপ থাকার কথা রোনালদোর।

ঠিক সময়ে যদি সামনে পড়েন কোনো কট্টর সমালোচক? তখন ঠিক যেমন আচরণ করা দরকার ঠিক তেমনিই আচরণ করলেন রোনালদো। সমালোচককে ক্যামেরার সামনে উপেক্ষা করে গিয়ে মধুর প্রতিশোধ নিয়ে নিলেন এই মহাতারকা।

ঘটনাটি ঘটেছে গতরাতে ম্যানইউ বনাম লিভারপুলের ম্যাচের আগে। শুরুর একাদশে না থাকায় বেঞ্চে বসার আগে গা গরম করছিলেন রোনালদো। তখন মাঠের একপাশে লাইভ চলছিল স্কাই স্পোর্টসের। উপস্থাপক ডেভিড জোনসের সঙ্গে তিন অতিথি—ম্যানইউর সাবেক ডিফেন্ডার গ্যারি নেভিল ও সাবেক অধিনায়ক রয় কিন এবং লিভারপুলের সাবেক ডিফেন্ডার জেমি ক্যারাঘার।

ঠিক সেসময়ে অনেকটা অপ্রত্যাশিতভাবে তাদের সামনে এসে পড়েন রোনালদো। হাত মেলান সাবেক ম্যানইউ সতীর্থ নেভিলের সঙ্গে। পাশেই ছিলেন লিভারপুলের সাবেক ডিফেন্ডার ক্যারাঘার, রোনালদোকে দেখে মাইক্রোফোন এগিয়ে দেন তিনি, তবে মাইক্রফোনের সাথে ক্যারাঘারকেও এড়িয়ে যান রোনালদো। তবে ক্যারাঘারের অপর পাশে দাঁড়ানো কিনের কাছে গিয়ে ঠিকই হাত মিলিয়ে কথা বলেন।

রোনালদোর সঙ্গে খেলা সাবেক মিডফিল্ডার কিন রোনালদোকে জিজ্ঞেস করেন, ‘তুমি তো একাদশে নেই? ফিরে যেতে যেতে রোনালদো বলেন ‘আমি কী করতে পারি?’ কিনের উত্তর, ‘দলে জায়গা করে নাও।’

সাথে থাকা তিনজনের মধ্যে একজনকে উপেক্ষা করে যাওয়ায় উপস্থাপক জোনস তখন হাসতে হাসতে বলেন, ‘আসল মানুষটা এখানে দাঁড়িয়েও রোনালদোকে কথা বলার জন্য থামাতে পারলেন না।’

ক্যারাঘারও তখন অকপটে স্বীকার করেন, ‘আমি পুরো হতভম্ব হয়ে গেছি।’

ক্যারাঘারকে প্রায় দেখা যায় রোনালদোর সমালোচনা করতে। সাবেক লিভারপুল তারকা একাধিকবার বলেছেন, রোনালদো চলে যেতে চাইলে ইউনাইটেড কোচ যেন তাকে না আটকান।


সর্বশেষ খবর পেতে আমাদের Google News ফিডটি ফলো করুন