আগের দুই ম্যাচে শ্রীলঙ্কা ও স্বাগতিক ভারতকে হারানোর পর তৃতীয় ম্যাচে এসে মালদ্বীপকে নিয়ে এক প্রকার ছেলেখেলা করলো বাংলাদেশের যুবারা। ম্যাচের প্রথমার্ধেই মালদ্বীপের জালে গুনে গুনে চার গোল দেয় বাংলাদেশ। লাল-সবুজদের জার্সিতে হ্যাট্রিক করেন মিরাজুল ইসলাম।

ম্যাচের শুরু থেকে আক্রমণের পসরা সাজিয়ে প্রতিপক্ষে কোণঠাসা করে রাখে বাংলাদেশ। আক্রমনাত্মক খেলার ফলাফল পেতেও দেরি হয়নি মিরাজ-নোভাদের।

১৯ তম মিনিটে বক্সের ডান দিক থেকে পিয়াস আহমেদ নোভার শট মালদ্বীপ গোলরক্ষক ঝাঁপিয়ে পড়ে ফেরালেও ফিরতি শটে ফাঁকা জালে বল জড়াতে ভুল করেনি মিরাজুল। প্রথম গোল পাওয়ার পর ম্যাচে আর পেছন ফিরে তাকাতে হয়নি বাংলাদেশের যুবাদের। ২২তম মিনিটে রফিকুলের দূর্দান্ত ক্রসে মুর্শেদ আলী হেডে বল বাড়িয়ে দেন গোলমুখে। সামনে থাকা মিরাজুলের নেওয়া প্রথম শট ক্রসবার কাঁপিয়ে আবারও ফিরে আসে মিরাজের পায়ে। বল জালে জড়িয়ে দলকে এগিয়ে দেন ২-০ গোলে।

৩২ তম মিনিটে গোল করেন রফিকুল। এই গোলেও অবদান ছিলো মিরাজের। বিরতিতে যাওয়ার আগেই মালদ্বীপের জালে এক হালি গোল পূর্ণ করে বাংলাদেশ। পিয়াসের পাস থেকে গোলমুখে শট নেয় মিরাজুল। গোলরক্ষক এবারও ফিরিয়ে দেন তবে তাতেও কাজ হয়নি। নিজের হ্যাট্রিক পূর্ণ করেন প্রথম ম্যাচের জয়ের নায়ক মিরাজুল ইসলাম।।

 

দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে ঘুরে দাঁড়ানোর গল্প লিখার চেষ্টা করে মালদ্বীপ। অনেকটা ভাগ্যের সহয়তায় মালদ্বীপের হয়ে ব্যবধান কমান জাইন।

এরপরের সময় পুরোটা জুড়ে প্রতিপক্ষকের রক্ষণকে আক্রমনের পর আক্রমন করে ব্যস্ত রাখলেও কয়েকটি সহজ সুযোগ হাতছাড়া করার কারণে গোলের দেখা পাইনি মিরাজ-নোভারা।

 

টানা তিন জয়ে ৯ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের শীর্ষে আছে বাংলাদেশ। ২ ম্যাচে ৬ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে আছে নেপাল। নিজেদের শেষ ম্যাচে আগামী মঙ্গলবার নেপালের মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ যুবারা।


সর্বশেষ খবর পেতে আমাদের Google News ফিডটি ফলো করুন