অনেকদিন পর ভারত পাকিস্তানের একটি হাড্ডাহাড্ডি লড়াই দেখল ক্রিকেট বিশ্ব। কেননা সাম্প্রতিক সময় ভারত পাকিস্তানের বেশির ভাগ ম্যাচগুলোই একতরফা হয়েছে।

রবিবার রাতে এশিয়া কাপের দ্বিতীয় ম্যাচে মুখোমুখি হয়েছিল ভারত পাকিস্তান। যেখানে ভারত টসে জিতে পাকিস্তানকে আগে ব্যাট করার আমন্ত্রণ জানায়। পাকিস্তান আগে ব্যাট করে, শাহনেওয়াজ দাহানির শেষের দিকে ৬ বলে ১৬ রানের কার্যকর ইনিংসের ফলে সম্মানজনক ১৪৭ রানের পুঁজি পায়। পাকিস্তানের পুঁজি দেখে অনেকেই হয়তো ভেবে নিয়েছিল ম্যাচটি খুব সহজেই জিতে যাবে ভারত।

কিন্তু পাকিস্তান শেষ ওভার পর্যন্ত লড়াই চালিয়ে গিয়েছে। শেষ পর্যন্ত ২ বল হাতে রেখে ৫ উইকেটে ম্যাচ জিতে নেয় ভারত ।

পাকিস্তানের শেষ ওভার পর্যন্ত লড়াই চালিয়ে যাওয়ার পেছনে সবচেয়ে বড় ভূমিকা পালন করেছে ১৯ বছর বয়সী উঠতি পেসার নাসিম শাহ। তার আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টির অভিষেক ম্যাচেই তিনি ইনজুরিতে থাকা শাহিন শাহ আফ্রিদির অভাব যেন বুঝতেই দেন নি।

ম্যাচের প্রথম ওভারের দ্বিতীয় বলে লোকেশ রাহুলকে বোল্ড করে ফিরিয়ে ভারত শিবিরে ফাটল ধরান। চতুর্থ বলে বিরাট কোহলির উইকেট‌ টাও পেতে পারতেন যদি ফাকার জামান স্লিপে ক্যাচটি মিস না করতেন।

নিজের দ্বিতীয় ওভারেও পাঁচ রান দিয়ে দারুণ বোলিং করেছেন নাসিম শাহ। ইনিংসের ১৫ তম ওভারে নিজের তৃতীয় ওভার করতে আসেন নাসিম শাহ। সেখানে ফর্মের তুঙ্গে থাকা সুরিয়া কুমার যাদবকে সরাসরি বোল্ড করে স্ট্যাম্প উড়িয়ে দিয়ে পাকিস্তানকে জয়ের স্বপ্ন দেখান।

১৮ তম ওভারে নিজের শেষ ওভারের বল করতে এসে নাসিম শাহ যা করে দেখালেন তা সত্যিই অসাধারণ। বল করতে গিয়ে পায়ে চোট পান, চোট এতটাই যে নাসিম পিচের পাশেই পড়ে যান এবং ব্যথায় কাতরাতে থাকেন। একটু সময় নিয়ে উনি আবার উঠে দাঁড়াই এবং পায়ের চোটকে হার মানিয়ে নিজের ওভার শেষও করেন।

নিজের শেষ ওভারে খুড়িয়ে খুড়িয়ে বল করলেন তিনি । যদিও তিনি পাকিস্তানকে ম্যাচ জেতাতে পারেননি, তবুও ক্রিকেটপ্রেমীদের হৃদয় জিতে নিয়েছেন । তিনি শেষ পর্যন্ত লড়াই করেছেন । ১৯ বছর বয়সে‌ নিজের অভিষেক ম্যাচে এমন লড়াকু মানসিকতার , প্রশংসা করেছেন সবাই।


সর্বশেষ খবর পেতে আমাদের Google News ফিডটি ফলো করুন